1. ctgnews16@gmail.com : ctgnewsbd : Nurul Absar Ansary
  2. banglahost.net@gmail.com : rahad :
শহর- গ্রামে বেড়েছে তালাক ও বিচ্ছেদের হার - Ctg News BD
শুক্রবার, ০১ মার্চ ২০২৪, ০৭:২৭ অপরাহ্ন
ঘোষনা
পেকুয়ায় দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার, ইয়াবা উদ্ধার চট্টগ্রামে ৪ প্রতিষ্ঠানকে ৫ লাখ টাকা জরিমানা ছাত্রীদের যৌন হয়রানি: ভিকারুননিসার শিক্ষক মুরাদ গ্রেপ্তার ২৫ সাইবার আইনের কয়েকটি ধারা সাংবাদিকদের বিপদে ফেলতে পারে: বিচারপতি হাসান চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে টপসয়েল কাটায় লাখ টাকা জরিমানা সার্কাস ও চাঁদাবাজির কাজে হাতি ব্যবহার করা যাবে না সংরক্ষিত নারী আসন: বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এমপি হলেন ৫০ জন, গেজেট মঙ্গলবার আনোয়ারায় মাজারের জমি দখলের অপচেষ্টার প্রতিবাদে মানববন্ধন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধিদলের সঙ্গে বৈঠক শেষে বিএনপি বলল, ‘কিছু বলার নেই’ ‘তারা আমাকে জেলে পাঠাতে পারে’: জার্মান গণমাধ্যমকে প্রফেসর ইউনূস

শহর- গ্রামে বেড়েছে তালাক ও বিচ্ছেদের হার

নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪
  • ৬৯ বার পঠিত

বর্তমানে শহর ও গ্রামে বিগত বছরের যেকোনো সময়ের চেয়ে তালাকের হারও বেড়ে দ্বিগুণ হয়েছে। শুধু শহরে এমন ঘটনা ঘটছে বিষয়টি তা নয়, গ্রামেও বেড়েছে তালাকের হার। পাশাপাশি বিচ্ছেদের হারও বেড়েছে। বর্তমানে তালাকপ্রাপ্ত এর সংখ্যা হলো ৭.৪ শতাংশ। যা ২০২১ সালে ছিল ৬.৫ শতাংশ। ২০২১ সাল থেকে ২০২২ সালে বিচ্ছেদ বেড়েছে ৯৩ শতাংশ। আর তালাক ০.৬ শতাংশ থেকে বেড়ে ১.৪ শতাংশে এসেছে ২০২৬ সাল থেকে ২০২২ সালে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) স্যাম্পল ভাইটাল স্ট্যাটিসটিকস-২০২২ (এসভিআরএস) এ চূড়ান্ত প্রতিবেদনে এ তথ্য তুলে ধরা হয়েছে। এটি সম্প্রতি ওয়াবসাইটে প্রকাশ করে সংস্থাটি।

এসভিআরএসে চূড়ান্ত প্রতিবেদনে উঠে এসছে, ২০২২ সালে বিগত বছরের তুলনায় তালাকের হার দ্বিগুণ হয়েছে। বছরে প্রতি হাজার জনসংখ্যায় তালাক হচ্ছে ১ দশমিক ৪ জনের। যা ২০২১ সালে প্রতি হাজার জনসংখ্যায় ছিল শূন্য দশমিক ৭ জন। পল্লি ও শহর উভয় এলাকায় এ বৃদ্ধির হার একই আদলে হয়েছে। দাম্পত্য বিচ্ছিন্নের হারও ২০২২ সালে বেড়েছে। প্রতি হাজার জনসংখ্যার বিপরীতে শূন্য দশমিক ২৯ জনের দাম্পত্য বিচ্ছেত হচ্ছে যা ২০২১ সালে ০.১৩ জন।

বিবিএস বলছে, প্রতি হাজারে বিবাহের হার এ যাবৎকালে সর্বোচ্চ দেখা গেছে। পল্লি অঞ্চলে বিবাহের হার শহরাঞ্চলের তুলনায় উল্লেখযোগ্য হারে বেশি। পল্লি অঞ্চলে হাজারে বিয়ের হার ১৯ দশমিক ৫ জন এবং শহরে ১৩ দশমিক ৮ জন। বৈবাহিক অবস্থার বিচারে জনসংখ্যার ৬৩ দশমিক ৯ শতাংশ মানুষ বর্তমানে বিবাহিত এবং ২৮ দশমিক ৭ শতাংশ মানুষ কখনো বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হননি। অবশিষ্ট ৭ দশমিক ৪ শতাংশ মানুষ বিধবা বিপত্মীক ও তালাকপ্রাপ্ত। নারীদের মধ্যে বিধবা তালাকপ্রাপ্তার ভাগ তাদের পুরুষ সমকক্ষ অর্থাৎ বিপত্মীক বা তালাকপ্রাপ্তদের তুলনায় প্রায় ৭ গুণ বেশি, যথাক্রমে ১২ দশমিক ৬ শতাংশ ও ১ দশমিক ৯ শতাংশ।

বিবিএস তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা যায় যে, সম্প্রতি বিশেষ করে পুরুষদের ক্ষেত্রে প্রথম বিবাহের গড় বয়স কিছুটা নিম্নমুখী। পুরুষদের বিবাহের বয়স ২০১৮ সালে ছিল ২৪ দশমিক ৪ বছর যা ২০২২ সালে কমে দাঁড়িয়েছে ২৪ বছরে। পক্ষান্তরে, নারীদের বিবাহের গড় বয়স ২০১৮ সালে ছিল ১৮ দশমিক ৬ বছর, যা ২০২২ সালে কমে দাঁড়িয়েছে ১৮ দশমিক ৪ বছরে।

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে কিশোরীদের জন্য অপ্রাপ্ত বয়স্ক/বাল্যবিবাহ একটি উদ্বেগের বিষয় হিসেবে রয়ে গেছে। কেননা ১৫ বছরের পূর্বে এবং ১৮ বছরের পূর্বে বিবাহের হারে ধারাবাহিকভাবে বৃদ্ধির প্রবণতা দেখা যাচ্ছে। ১৫ বছরের পূর্বে বিবাহ ২০২২ সালে বেড়ে হয়েছে ৬.৫ শতাংশ। যা ২০১৮ সালে ছিল ৪.৬ শতাংশ। ১৮ বছরের আগে নারীদের বিবাহের হার ২০২২ সালে ৪০ দশমিক ৯ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। যা ২০১৮ সালে ৩০ শতাংশ ছিল। অর্থাৎ প্রতি বছর গড়ে ২ দশমিক ১৮ শতাংশ পয়েন্ট করে বেড়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Theme Customized BY WooHostBD