1. ctgnews16@gmail.com : ctgnewsbd : Nurul Absar Ansary
  2. banglahost.net@gmail.com : rahad :
খাল রক্ষায় চট্টগ্রামের সব খালে নৌকা চালাতে চান মেয়র - Ctg News BD
শুক্রবার, ০১ মার্চ ২০২৪, ০৮:২৪ অপরাহ্ন
ঘোষনা
পেকুয়ায় দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার, ইয়াবা উদ্ধার চট্টগ্রামে ৪ প্রতিষ্ঠানকে ৫ লাখ টাকা জরিমানা ছাত্রীদের যৌন হয়রানি: ভিকারুননিসার শিক্ষক মুরাদ গ্রেপ্তার ২৫ সাইবার আইনের কয়েকটি ধারা সাংবাদিকদের বিপদে ফেলতে পারে: বিচারপতি হাসান চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে টপসয়েল কাটায় লাখ টাকা জরিমানা সার্কাস ও চাঁদাবাজির কাজে হাতি ব্যবহার করা যাবে না সংরক্ষিত নারী আসন: বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এমপি হলেন ৫০ জন, গেজেট মঙ্গলবার আনোয়ারায় মাজারের জমি দখলের অপচেষ্টার প্রতিবাদে মানববন্ধন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধিদলের সঙ্গে বৈঠক শেষে বিএনপি বলল, ‘কিছু বলার নেই’ ‘তারা আমাকে জেলে পাঠাতে পারে’: জার্মান গণমাধ্যমকে প্রফেসর ইউনূস

খাল রক্ষায় চট্টগ্রামের সব খালে নৌকা চালাতে চান মেয়র

নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০২৩
  • ৮০ বার পঠিত

নগরীতে জলাবদ্ধতা নিরসনে চলমান প্রকল্পগুলোর কাজ শেষ হলে খালগুলোতে নৌকা চালানোর পরিকল্পনার কথা জানিয়েছেন সিটি মেয়র এম রেজাউল করিম চৌধুরী। মঙ্গলবার(৫ ডিসেম্ব)  বিকালে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (সিডিএ) জলাবদ্ধতা নিরসণ প্রকল্পের অগ্রগতি দেখতে রাজাখালী খাল-২ থেকে কল্পলোক আবাসিক এলাকা পর্যন্ত পরিদর্শন করেন মেয়র।

পরে সাংবাদিকদের মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, চট্টগ্রামে জলাবদ্ধতা নিরসনে সিডিএ ২টি, সিটি করপোরেশন ও পানি উন্নয়ন বোর্ড একটি করে ১১ হাজার ৩৪৪ কোটি টাকার মোট ৪টি প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে।উদ্ধার হওয়া খালগুলোকে রক্ষার্থে প্রকল্প শেষ হলে সেখানে নৌকা চালুর পরিকল্পনা আছে আমার। কারণ প্রকল্প শেষ হলে খালগুলো রক্ষা করা হবে বড় চ্যালেঞ্জ। এজন্য প্রকল্প শেষ হলে বিনোদনের ক্ষেত্র তৈরির জন্য বারইপাড়া খালসহ উদ্ধার হওয়া সবগুলো খালে নৌকা ও স্পিডবোট চালু করা হবে।

মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, খালে যখন মানুষ ময়লা দেখবেনা বরং স্বচ্ছ জলপ্রবাহে বিনোদনের উৎস খুঁজে পাবে তখন মানুষ আর খালে ময়লা ফেলবেনা। এ প্রকল্পগুলো বাস্তবায়িত হলে এবং যথাযথ রক্ষণাবেক্ষণ ও রুটিন ওয়ার্ক পরিচালনা করলে চট্টগ্রামের জলাবদ্ধতা কমবে। পাশাপাশি, এ প্রকল্পগুলোর আওতায় খালপাড়ে নির্মিত সড়ক ও কালভার্টের কারণে নগরীর যোগাযোগ সক্ষমতা বাড়বে।

প্রকল্পগুলোর সুফল পেতে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বাড়ানো হবে মন্তব্য করে মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, আমরা প্রকল্প এলাকাগুলোতে ময়লার ভাগাড়ও নির্মাণ করব। যাতে খালপাড়ের মানুষ বর্জ্য ফেলে খাল ময়লা দিয়ে ভরিয়ে না ফেলে। প্রকল্প এলাকায় উদ্ধার হওয়া খালসংলগ্ন ভূমি রক্ষায় সীমানা নির্ধারণী খুঁটি বসানো হবে। কারণ এ খালগুলোকে রক্ষার সাথে কর্ণফুলী এবং চট্টগ্রামের অস্তিত্বের প্রশ্ন জড়িত।

এ সময় প্রকল্প পরিচালক সেনাবাহিনীর ৩৪ ইঞ্জিনিয়ারিং কনস্ট্রাকশন ব্রিগেডের লেফটেন্যান্ট কর্নেল শাহ আলী জানান, সিডিএর জলাবদ্ধতা নিরসন প্রকল্পের আওতায় নগরীর বাকলিয়া এলাকার প্রায় ৪ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের পরস্পর সংযুক্ত ৩০-৩২ ফুট প্রস্থের রাজাখালী-১, রাজাখালী-২ এবং রাজাখালী-৩ খাল তিনটির খনন কাজের পাশাপাশি দুই পাড়ে রিটেইনিং ওয়াল ও রেলিং নির্মাণ করা হয়েছে। এছাড়া খাল দখল ঠেকাতে দুই পাশে নির্মাণ করা হয়েছে সড়কও। খালে এত বেশি পলিথিন ছিল যে অনেক স্থানে ৪ মিটার পর্যন্ত মাটি তুলে ফেলতে হয়েছে। এরপর বালু ফেলে ভরাট করে বিটুমিনের পরিবর্তে আরসিসি রোড নির্মাণ করা হচ্ছে। যাতে সড়কগুলো দীর্ঘমেয়াদে খালের পানিতেও নষ্ট না হয়।

নগরীর জলাবদ্ধতা নিরসনে ২০১৭ সালে নগরীর ৫৭টি খালের মধ্যে ৩৬টি খাল নিয়ে পাঁচ হাজার ৬১৬ কোটি টাকার একটি প্রকল্প নেয় গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়, যেটি বাস্তবায়ন করছে সিডিএ। প্রকল্পটি ২০২০ সালের জুনে শেষ হওয়ার কথা থাকলেও পরে মেয়াদ আরও ৩ বছর বাড়িয়ে চলতি বছরের জুন পর্যন্ত করা হয়। সেই মেয়াদও পেরিয়ে গেছে।

এরপর ডিপিপি পর্যালোচনা করে ভূমি অধিগ্রহণের ক্ষতিপূরণসহ আনুষাঙ্গিক নানা কাজের জন্য বাজেট আরো ৩০১২ কোটি টাকা বাড়িয়ে সবশেষে গত নভেম্বরে একনেক সভায় তা অনুমোদন করা হয়েছে। প্রকল্পের মেয়াদ বেড়ে হয়েছে ২০২৬ সালের জুন পর্যন্ত।

চট্টগ্রামে দখলমুক্ত খালে নৌকা চালাতে চান মেয়র, এ প্রসঙ্গে প্রকল্প পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল শাহ আলী বলেন, রিভাইজড ডিপিপি অনুমোদন হওয়ায় সিডিএ এখন সহজে ভূমি অধিগ্রহণ করতে পারবে। ভূমি অধিগ্রহণ না হওয়ায় কয়েকটি খালের কাজ আটকে ছিল। ইতিমধ্যে ২২টি খালের কাজ শেষ। রিটেনিং ওয়াল হয়েছে। দু’পাশের রাস্তা এবং ফুটপাতের কাজও বেশিরভাগ শেষ। তবে এখনই সেগুলো আমরা সিটি করপোরেশনকে হস্তান্তর করছি না।

এসময় উপস্থিত ছিলেন সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী, কাউন্সিলর আবদুস সালাম মাসুম, প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা বাংলাদেশ নৌবাহিনীর কমান্ডার লতিফুল হক কাজমী, উপ-প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা মোর্শেদুল আলম, মশক ও ম্যালেরিয়া নিয়ন্ত্রণ কর্মকর্তা শরফুল ইসলাম মাহি।

উল্লেখ্য, চট্টগ্রাম নগরীর জলাবদ্ধতা নিরসনে ২০১৭ সালে নগরীর ৫৭টি খালের মধ্যে ৩৬টি খাল নিয়ে পাঁচ হাজার ৬১৬ কোটি টাকার একটি প্রকল্প নেয় গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়, যেটি বাস্তবায়ন করছে সিডিএ।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Theme Customized BY WooHostBD